Human Mind Power

বইটি

*রচিত মূল বই “ মনুয্য মন ও আদর্শের নিপুন ক্ষমতা অর্জন” এর সারাংশ*-
*-মন-*
মন হ’ল মগজ ও প্রান্তিয় পন্চ জ্ঞান ইন্ন্দ্রিয়গুলো থেকে প্রাপ্ত দেহের অভ্যন্তরে অবস্থিত বহুমুখী শক্তির এক মহা সমন্বয়। এই মনই বাহিরের পন্চ কর্ম ইন্দ্রিয়গুলোকে দিয়ে নানান দরকারী কর্ম সম্পাদন করাচ্ছে।
এই ‘মন’ শুধু মাত্র একটি বিষয় নয়।এটিকে একটি মাধ্যম হিসেবেও ধরে নেওয়া যেতে পারে। পৃথিবীর আর সব বিষয়ের শিক্ষা দীক্ষার ব্যাপার এই মন দিয়েই সম্ভব হয়।
উদ্দেশ্য – “যেন ক্ষমতাশীল মন সৃষ্টির প্রয়াসটির ওপর আলোক সম্পাত হয়”।
সাম্প্রতিক ‘কোভিড ১৯ ভাইরাসের’ প্রকোপ জনিত দুর্দশা মুক্তিতে ক্ষমতাশীল মন নিয়ে বিশেষ তথ্য ভিতরে থাকল।
মনুষ্যমনের বহুমুখী প্রতিভার স্বরূপ উন্মোচনে যা প্রয়োজন তা হ’ল মন নিয়ন্ত্রণ অর্থাৎ মন অধ্যয়ন, মনের শুদ্ধিকরণ, সেই শুদ্ধতার বজাই রক্ষণ ও পরে সেই মনের দৈনিন্দন সৎ ব্যবহারে পৃথিবীর প্রায় সব আকাংখিত আদর্শময় সামগ্রী সমূহ যেমন সুখ, শান্তি, জন ব্যক্তিত্ব, সম্পর্ক, স্বাস্থ্য, সম্পদ, মানব ঐক্য, বিজয়, উন্নতি, বিপদের পূর্বাভাস ও তা থেকে প্রতিরক্ষা ইত্যাদি সম্ভব।
মনের শুদ্ধিকরণের ও তাঁর বজায় রক্ষণের প্রক্রিয়াগুলোর মধ্যে “যোগ ধ্যান” কে নিখুঁত ভাবে বর্ণনা করা হয়েছে এখানে। এর প্রয়োজনীয়তা শুধু মনের শুদ্ধিকরণ বা ইঁশ্বর দর্শন নয় বরং ব্যবহৃত হচ্ছে মনুষ্য মনের অবসাদ ও উদ্বেগ নির্মোচনের নিমিত্তেও। আর ব্যবহৃত হচ্ছে দুই মনুষ্যমনের ( জাগ্রত ও *অর্ধ জাগ্রত মনের ) নিয়ত দরকারী সংযোগ স্খাপনে ( যার থেকে পাওয়া যায় নব প্রতিভা, নব সৃষ্টির খোঁজ আর সূচনাতে আনা যায় জীবনের বহু অপূর্ণ স্বপ্নের সুপ্ত ঝর্ণার উদ্ভব )
এ ছাড়াও ওপরের প্রক্রিয়ার (বা সাধনার) মাধ্যমে সময়ের সাথে সাথে এক বিশেষ ক্ষমতার অর্জন সম্ভব হয় যা দিয়ে ভবিষ্যতের সম্ভাব্য বিপদের পূর্বাভাস, ও তাহা থেকে জীবন প্রতিরক্ষণও অনেক বেশী সম্ভব হয়।
সর্বোপরি ইঁশ্বর দর্শনের মহান অভিজ্ঞতাও এ দ্বারা সহজ সাধ্য হয়। মন নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি থেকে উৎপন্ন সামগ্রিক আধ্যাত্মিকতাবাদ একটি অমূল্য সম্পদ।
মানুষ্য মনগুলো আলাদা হয়েও সম প্রকৃতিতে বিভেদহীন।

*অর্ধজাগ্রত মন—জাগ্রত মনের মত এটি পুরোপুরি জাগ্রত নয় কিন্তু বিশেষ ব্যাপার এই যে, এটি সব সময়ই জেগে থাকে। মানসিক শক্তির শতকরা ৯০ ভাগ এইখানে।
দায়িত্বপূর্ণ কর্মে প্রতিনিধিত্বকারী এই মন সেই সমস্ত কর্মে ব্যস্ত থাকে যেগুলো ওপরের পূর্ণ জাগ্রত মন তাঁকে বন্টন করেছে। এই মন ঐঁশ্বরিক (Divine )।
মনুষ্যমনের সাথে জন্ম-মৃত্যু চক্র, পুনর জন্ম ইত্যাদিরও পরিস্কার সম্পর্ক আছে আর তাতেও আলোকপাত সম্ভব হয়েছে এখানে।
জীবের ইঁশ্বর প্রাপ্তিতে ( Emancipation ) মনের এই মহান অবদানটিতেও আলোক এসেছে।
শুদ্ধ মনের সৎ ব্যবহারে “একের ভিতর দিয়ে পৃথিবীর প্রয়োজনীয় সব কিছুই” পাওয়া সম্ভব।

তাই আদর্শের নিপুন ক্ষমতা অর্জনে এই বইটির প্রয়োজনীয়তার বিস্তীর্ণতাকে “ জুতো সেলাই থেকে চঁন্ডি পাঠ পর্যন্ত “ এক সুবিশাল মিলিত অন্চলের সাথে তুলনাতে আনা যেতে পারে।
এটির ‘সবিশেষ ব্যবহার’ দৃষ্টি আকর্ষনীয় হচ্ছে মাইন্ড পাওয়ার ট্রেনিং’এর শিক্ষক/শিক্ষার্থীদের মধ্যে, কৃতি জীবন প্রশিক্ষক ( life Coach ) হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সংগ্রামে, আদর্শ স্বামী/স্ত্রীর সুসম্পর্ককে বা অন্য আর সব সম্পর্ককেও আরো উত্তম ও দীর্ঘজীবী করার নিমিত্তে।
ঐক্য/সঙ্ঘবদ্ধতাকে পারিবারিক তথা জাতীয় জীবনে স্বাগতম জানাতে, ন্যায়কারী / অন্যায়কারী, আইনকারী, অভিনেতা, অভিনেত্রী ইত্যাদি সব বৃত্তিতেই মনশুদ্ধিকরণ দ্বারা প্রাপ্ত বিচক্ষণতা তথা মুখমন্ডলের আধ্যাত্মিক আলোর স্ফুরণ অর্জনে এবং আরো আর সব বহুল উন্নতি অর্জনের সর্ব কর্ম উদ্যোগেও এর প্রয়োজন অতি জরুরী।

মনুষ্য মন ও আদর্শের নিপুণ ক্ষমতা অর্জন ( ১ম খন্ড )

--সূচিপত্র…

১.মনের কথা ( পাঠক পাঠিকাদের জন্য )-
২.পটভূমিকা-
৩.জীবন প্রশিক্ষণ-
৪.আদর্শ মনুষ্য মন সৃষ্টির পিছনের প্রয়োজনীয় উপকরণগুলো ও জীবদেহে মনের তাৎপর্যের আলোচনা-
৫.যোগীবর স্বামী বিবেকানন্দের মন সম্পর্কীয় কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ( from his ‘Complete Works’ )-
৬.মনুষ্য মনের অধ্যয়ন ( study of human psychology )-মনুষ্য মনের বিস্তারিত আলোচনা-
৭.মনের শুদ্ধিকরণ ও তৎপরে সেই শুদ্ধতার সুসংরক্ষণ-
৮.আদর্শ মন নিয়ন্ত্রন-
৯.মূল্যবান সম্পদ সামগ্রী, আদর্শ মন নিয়ন্ত্রণ থেকে উৎপন্ন ( শুদ্ধ মনের ব্যবহার হেতু )-
১০.মহামূল্যবান সম্পদ, আদর্শ মন নিয়ন্ত্রণ থেকে উৎপন্ন ( শুদ্ধ মনের ব্যবহার হেতু )-যেমন-ব্যক্তিত্ব/চরিত্র , সুখ, শান্তি, উন্নতি/বিজয়/সমৃদ্ধি, সার্বিক সাফল্য তথা সর্ব সম্পর্ক ইত্যাদি-
১১.চূড়ান্তে অর্জিত হয় অমূল্য সম্পদগুলো, সেই আদর্শ মন নিয়ন্ত্রণ থেকেই উৎপন্ন ( শুদ্ধ মনের ব্যবহার হেতু ), যা কিনা তথাকথিত পার্থিব সম্পদের অনেক উপরের স্তরের যেমন শুদ্ধ চেতনা, বিচক্ষণতা, দর্শন ও চূড়ান্তে আধ্যাত্মবাদের পরম শিখর থেকে প্রাপ্ত ইঁশ্বর দর্শন প্রবণতা, স্থিতপ্রজ্ঞতা ও ব্রঁম্ভ দর্শন ইত্যাদি
১২. স্নায়ু ও যুগ্ম ভাষা ( মিলিত মৌখিক ও দৈহিক ) ভিত্তিতে বিদ্যমান অন্তর্দৈহিক ব্যবস্খাপনা ( NLP ) –
১৩.ইঁশ্বর দর্শন-
১৪. দর্শন-
১৫. রাজনীতি-
১৬. কৃতজ্ঞতা স্বীকার-
১৭. লেখক পরিচিতি-

Khamatasheel Manushaya Mon
Acquiring Mastery of Human Mind and Ideals

ভিজ্যুয়ালাইজ করুন আপনার স্বপ্ন

এখানে সর্বাধিক গুরুত্ব হল একটি “আদর্শ মন নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি” লক্ষ্য করা। প্রোগ্রামটিতে নিম্নলিখিত বাধ্যতামূলক পদক্ষেপগুলি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত: মানব মনস্তত্ত্ব অধ্যয়ন করা, মানুষের মনকে শুদ্ধ করা, দীর্ঘমেয়াদে সেই বিশুদ্ধতা বজায় রাখা এবং পরবর্তীতে দৈনন্দিন জীবনে শুদ্ধ মানব মনকে ব্যবহার করা। এটি করার মাধ্যমে, শুদ্ধ মনের ব্যবহারের ফলে উৎপন্ন উত্পাদনশীলতা আদর্শ মন নিয়ন্ত্রণের আশীর্বাদ হিসাবে বিবেচিত হবে। অন্য কথায়, মানবতাকে একে অপরের সাথে তাদের সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় মানবিক গুণাবলী যেমন ভালবাসা, শ্রদ্ধা, স্নেহ, সুখ, আনন্দ, সমৃদ্ধি, ব্যক্তিত্ব এবং চরিত্র সরবরাহ করা হবে। উপরন্তু, একতা এবং অখণ্ডতা অর্জন করা হবে, যা বিপদমুক্ত জীবনের দিকে পরিচালিত করবে এবং “ঈশ্বর উপলব্ধি” এর সবচেয়ে ঐশ্বরিক অর্জন সম্ভব হবে।

প্রকৃতপক্ষে, সমগ্র বিশ্ব চিরকাল শান্তি ও সমৃদ্ধির সাথে বিকাশ লাভের জন্য ভবিষ্যতের মানবতার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত স্থান হয়ে উঠবে।